মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

এক নজরে

জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণব্যুরো (বিএমইটি) এবং এর কার্যাবলী :

 

জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো ১৯৭৬ সালে তৎকালীন “জনশক্তি উন্নয়ন ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের” সংযুক্ত বিভাগ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়ে এর কর্মযাত্রা শুরু করে। বৈদেশিক কর্মসংস্থানে অভিবাসী কর্মী নিয়োগ ও প্রেরণের লক্ষ্যে এ ব্যুরো প্রতিষ্ঠিত হয়।বর্তমানে বিএমইটি প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীনে অভিবাসন ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানে নিয়োগ প্রক্রিয়া তত্ত্বাবধান, অভিবাসী কর্মীদের অধিকার সংরক্ষণ ও দক্ষতা, প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের অধিকতর  সুযোগ সৃষ্টি করে দেশের কর্মোপযোগী জনগোষ্ঠীকে যথাযথভাবে কাজে লাগানোর লক্ষ্যে বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।  অভিবাসী কর্মী, চাকুরী অন্বেষী ও সংশ্লিষ্ট অংশীজনের জন্য প্রয়োজনীয় সকল সেবাপ্রদানকারী সরকারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিএমইটি ব্যাপক অবদান রেখে চলেছে।

 

জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর রূপকল্প ও অভিলক্ষ্যঃ

 

রূপকল্পঃ

বৈদেশিক কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি, দক্ষতা উন্নয়ন ও অভিবাসী কর্মীদের অধিকতর কল্যাণ ও নিরাপদ অভিবাসন।

 

অভিলক্ষ্যঃ

বিশ্ব শ্রমবাজারের চাহিদার ভিত্তিতে যথাযথ কারিগরি প্রশিক্ষণ প্রদান, সুষ্ঠু ও সুসংহত অভিবাসন ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে কর্মপ্রত্যাশী জনগোষ্ঠির বৈদেশিক কর্মসংস্থানের সুযোগ বৃদ্ধি এবং অভিবাসী কর্মীদের সুরক্ষা, অধিকতর কল্যাণ ও অধিকার নিশ্চিত করা।  

 
এক নজরে বিএমইটি পরিচালিত কার্যক্রমসমূহঃ
 
 চাহিদা অনুযায়ী বাংলাদেশী কর্মীদের বৈদেশিক কর্মসংস্থানে নিয়োগ সংক্রান্ত  কার্যক্রম প্রক্রিয়াকরণ। 
 বৈদেশিক কর্মসংস্থানে নিয়োগপ্রাপ্ত কর্মীদের বহির্গমন ছাড়পত্র প্রদান সংক্রান্ত কার্যক্রম তত্বাবধান ও নিয়ন্ত্রন। 
 বাংলাদেশী অভিবাসী কর্মীদের বৈদেশিক কর্মসংস্থানে নিয়োগের জন্য  বেসরকারী নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান (রিক্রুটিং এজেন্সী) সমূহকে নিয়মিত তত্বাবধান ও নিয়ন্ত্রন করা । 
 আত্ম-কর্মসংস্থানের জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ ও বাস্তবায়নে সহায়তা প্রদান।
 কম্পিউটারাইজড ডাটাবেজের মাধ্যমে শ্রমবাজার সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ ও উপস্থাপন।। 
 বিদেশে বাংলাদেশী কর্মীদের সার্বিক কল্যাণ ও অধিকার সংরক্ষণমূলক কার্যক্রম পরিচালনা। 
 কর্মপ্রত্যাশীদের তালিকা করণ ও সম্ভাব্য কর্মসংস্থানে নিয়োগে সহায়তা প্রদান। 
 বিভিন্ন কর্মোপযোগী ও পেশাভিত্তিক ট্রেডে প্রাতিষ্ঠানিক ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ প্রদান। 
 প্রশিক্ষণ কার্যক্রম  পরিচালনার লক্ষ্যে যুগোপযোগী বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন। 
 চাহিদাভিত্তিক বিভিন্ন আনুষ্ঠানিক, অনানুষ্ঠানিক বা বিশেষ প্রশিক্ষণ কার্যক্রম গ্রহণ ও পরিচালনা। 
 শিক্ষানবিসি প্রশিক্ষণ কার্যক্রম এর সার্বিক সমন্বয় সাধন।

ছবি


সংযুক্তি



Share with :

Facebook Twitter